নেপাল টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং বিস্তারিত ২০২২ (খরচ সহ)

nepal tourist visa

আমাদের আজকের পোস্টে নেপাল এর টুরিস্ট ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। আপনারা যারা নেপাল টুরিস্ট ভিসায় যেতে যাচ্ছেন তাদের জন্য এখানে বিস্তারিত তথ্য দেয়া হলো। নেপাল এর টুরিস্ট ভিসায় আপনি কিভাবে আবেদন করতে পারেন, এবং বাংলাদেশে কি ধরনের ভিসা হয়ে থাকে সে সম্পর্কে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো।

আপনি যদি নেপাল যেতে বিমানে যেতে চান অথবা বাই রোড এ যেতে চান তাহলে কিভাবে ভিসার আবেদন করতে হবে। এছাড়া আপনি যদি স্টিকার ভিসা নিয়ে নেপালে ভ্রমণ করতে চান তাহলে কিভাবে ভিসার জন্য আবেদন করতে হবে তা উল্লেখ করা হলো।

এছাড়া টুরিস্ট ভিসার ক্ষেত্রে ১৫ ৩০ এবং ৯০ দিনের হয়ে থাকে। এ সমস্ত ভিসার জন্য আবেদন খরচ কত হবে সে সম্পর্কেও ধারণা পেয়ে যাবেন এই পোস্ট থেকে।

আপনি চাইলে দুই ভাবে নেপালে টুরিস্ট ভিসায় যেতে পারবেন। একটি হচ্ছে অন এরাইভাল ভিসা। এই মাধ্যমে আপনি একটি হোটেল রিজার্ভেশন টিকিট এবং বিমানের টিকিট কেটে নেপাল চলে যেতে পারেন। সেখানে গিয়ে এয়ারপোর্ট থেকেই আপনি টুরিস্ট ভিসার পারমিশন পেয়ে যেতে পারেন। এয়ারপোর্ট থেকেই আপনার বিস্তারিত তথ্য জেনে তারা নির্ধারিত কয়েকদিন আপনাকে পারমিশন দিয়ে দিবে।

তবে মূল ভিসা পেতে হলে আপনাকে একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মাধ্যমে আবেদন করতে হবে। এই পদ্ধতিটি হচ্ছে স্টিকার ভিসা। স্টিকার ভিসা পেতে হলে আপনাকে নির্ধারিত কিছু ডকুমেন্টস দিয়ে নেপাল এম্বাসিতে আবেদন করতে হবে।

এক্ষেত্রে আপনার একটি ভ্যালিড পাসপোর্ট থাকতে হবে যার মেয়াদ কমপক্ষে ছয় মাস হতে হবে। একটি ভিসা অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম পূরণ করে জমা দিতে হবে। সদ্য তোলা এক কপি ছবি থাকতে হবে। খেয়াল রাখবেন যেন ছবিতে কোন চশমা না থাকে এবং উভয় পাশের কান স্পষ্ট দেখা যায়।

আপনার আপডাউন এয়ার টিকেট এর কপি এবং হোটেল রিজার্ভেশন এর কপি আবেদন পত্রের সাথে থাকতে হবে। এছাড়া আপনার প্রফেশনাল প্রুফ লাগবে। অর্থাৎ বিজনেসম্যান হলে ট্রেড লাইসেন্স এর ইংলিশ ভার্সন, চাকরিজীবী হলে নো অবজেকশন লেটার এবং লিভ লেটার, এছাড়া আপনি যদি ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে লিভ লেটার এবং স্টুডেন্ট আইডি কার্ড এর ফটোকপি আবেদনপত্রের সাথে যুক্ত করতে হবে।

nepal visa p1

এখানে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হচ্ছে আপনি যদি প্রথমবার নেপালের ভিসা আবেদন করতে যান তাহলে কোন চার্জ প্রযোজ্য হবে না। অর্থাৎ এক বছরের মধ্যেও প্রথমবার নেপালের টুরিস্ট ভিসায় কোন cost লাগে না।

nepal visa p2

তবে টুরিস্ট ভিসার জন্য দ্বিতীয়বার বা একাধিকবার আবেদনের ক্ষেত্রে নির্ধারিত চার্জ প্রযোজ্য হবে। নেপালের টুরিস্ট ভিসার জন্য প্রদত্ত খরচ সমূহ:

১৫ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য খরচ হবে  ২৭০০ টাকা
৩০ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য পড়বে  ৪৫০০ টাকা
৯০ দিনের মাল্টিপল ভিসার জন্য খরচ হবে  ১১২৫০ টাকা

ভিসা আবেদনের ক্ষেত্রে আপনি সরাসরি নিজে নেপালের এম্বাসী তে যোগাযোগ করতে পারেন। অথবা আপনি না করতে পারলে কোন নির্ধারিত এজেন্সী এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন। তবে সেই ক্ষেত্রে এজেন্সি করতে চার্জ আলাদা ধরা হবে। নেপাল এম্বাসি কর্তৃক নির্ধারিত এজেন্সি এর মাধ্যমে আবেদন করলে আপনাকে কোন কাজই করতে হবে না। শুধুমাত্র ডকুমেন্টস গুলো নিয়ে তাদের সাথে দেখা করলেই হবে। বাকি কাজ তারাই করে দিবে।

আপনি যদি বাই রোডে নেপাল যেতে চান তাহলে স্টিকার ভিসার পাশাপাশি ভারতের একটি ট্রানজিট পারমিট লাগবে। এই পারমিট নিয়ে আপনি সরাসরি বাই রোডে নেপাল যেতে পারবেন। আর যদি বিমানে যেতে চান তাহলে যেকোন এয়ারলাইন্স এর টিকেট কেটে স্টিকার ভিসার মাধ্যমে সরাসরি নেপাল যেতে পারেন।

আরো দেখুনঃ

মালয়েশিয়া টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং খরচ এর বিস্তারিত

ইন্ডিয়ান টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং এবং যাবতীয় বিস্তারিত খরচ সহ

সেন্টমার্টিন দ্বীপ সম্পর্কে নতুন তথ্য- ডুবে যাচ্ছে ধীরে ধীরে

About Aria Smith

Hi, I'm Aria Smith. I am an Engineer. I like to Write blogs very much & may it be on multiple niches. On this site, we exposed every single moment earnings of popular persons.

View all posts by Aria Smith →

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *